নিয়ন্ত্রণহীন দ্রব্যমূল্যের বাজার,ভোলায় মাছে বাজার সিন্ডিকেট।।

বাজার প্রতিনিধি#
ভোলায় নিত্যপ্রয়োজন পন্যের দাম স্বাভাবিক থাকলেও মাছ,মাংসের দাম অধিক। বেশকয়েক ক্রেতার জানিয়েছে মাছ বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির নামে চলছে নানামূখি সিন্ডিকেট।

মূলত চাহিদা আমলে নিয়ে সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে এবং ক্রয়ক্ষমতাকে সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারলে দ্রব্যমূল্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। চাহিদার হিসাব সঠিক থাকলে, সে অনুযায়ী যথাসময়ে সরবরাহ সুনিশ্চিত করতে পারলে আর ক্রয়ক্ষমতা সঠিক নজরদারিতে থাকলে বা রাখতে পারলে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল হতে পারে।

বলা বাহুল্য, দেশে দ্রব্যমূল্য পরিস্থিতি নীতি-নিয়মের মধ্যে রাখা বা নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে কোনো কার্যকর পদ্ধতি বা ব্যবস্থা নেই। যদিও পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার তথা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং এফবিসিসিআইসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বেশকিছু উদ্যোগ কিংবা পদক্ষেপ প্রায় শেষপ্রান্তে এসে গ্রহণ করার ঘোষণা মিডিয়ায় প্রকাশ পায়। কিন্তু পেঁয়াজের ‘বিমান ভ্রমণে’র উদ্যোগ নিয়েও পরিস্থিতি সামাল দেয়া যায়নি। আমদানি শুল্ক ও বিমানের মাশুল মাফ করে পেঁয়াজকে মহিমান্বিত করা হয়েছে, মনে হয়েছে এ কথিত কৃত্রিম সংকট অ-আমদানিকারক সিন্ডিকেটের সুযোগ সৃষ্টির কৌশল। যেমন- মাহে রমজানে দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি একটি ঐতিহাসিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। পেঁয়াজ, লবণ, চাল সংকট সৃষ্টিতে মনে হয় যেন এ সমস্যাকে রমজান মাসের বাইরেও সম্প্রসারণের মহড়া চলছে। রমজান মাস শুরু হওয়ার মাস দুই আগে থেকেই সরকার টিসিবি’র মাধ্যমে বিশেষ কয়েকটি আইটেমের বিকল্প আমদানির ব্যবস্থা গ্রহণসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা করে থাকে। বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গেও চলে সংলাপ। তারপরও রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি অনেকটা নিয়মে পরিণত হয়েছে। অতীতে পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইকে শুধু বেগুনের মতো একটি আইটেমের মেগা দরবৃদ্ধির বিরুদ্ধেও কমিটি গঠন করে পরিস্থিতি মোকাবেলার প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে ভেজাল ও ফরমালিন নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নেয়ার পরও জনস্বাস্থ্য রীতিমতো চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে।

একদিকে চাল, চিনি, মাছ, মাংস, ভোজ্যতেল আর সবজি এবং অন্যদিকে ছোলা, ডাল ও পেঁয়াজের মতো আইটেমের অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধির কারণ হল এসব পণ্যের সরবরাহের তুলনায় অস্বাভাবিক চাহিদা বৃদ্ধি। ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে না থাকায় কোনো কোনো ক্রেতা হয়তো এসব সামগ্রী ক্রয়ে হিমশিম খান। কিন্তু অস্বাভাবিক অর্থ উপার্জনকারী পণ্যের দাম যতই হোক না কেন, তা ক্রয়ে সক্ষম। অবস্থা যদি এমন হতো যে, দাম বাড়ার কারণে সব ভোক্তা ওই পণ্য ক্রয়ে একসঙ্গে বিরত থাকতে পারেন, তাহলে সহসা সার্বিক চাহিদা কমে পচনশীল এসব পণ্যের দাম পড়ে যেত। কিন্তু তা তো হওয়ার নয়, কারণ সেক্ষেত্রে উৎপাদন এবং এর বিপণন পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট সবাই ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। এর ফলে সরবরাহ চেইনে বিপর্যয় নেমে আসতে পারে। অর্থনীতি এভাবে চলতে পারে না। চড়া মূল্যে কেনার মানুষ আছে বলেই চড়া মূল্য হাঁকা হয় আর এ পর্যায়ে স্থির কিংবা সীমিত আয়ের মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বোঝার বাকি থাকে না, এমতাবস্থায় চাহিদা ও সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য বিচ্যুত হয়ে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।

মানুষের মধ্যে অস্বাভাবিক অতিরিক্ত চাহিদা সৃষ্টি হয় বিশেষ বিশেষ সময়ের প্রয়োজনে এবং সে প্রয়োজন মেটাতে হয় ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে। ক্রয়ের সক্ষমতা সব পর্যায়ে সমানভাবে বৃদ্ধি না পেলে মূল্যস্ফীতি লাগামহীন ও নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ে।

ফরমালিনের বিরুদ্ধে জোরেশোরে অভিযান চললেও পরিস্থিতির আশাজাগানিয়া কোনো উন্নতি ঘটেছে কি? ফরমালিন ব্যবহারকারীরা আপাতত পিছু হটলেও খাদ্যদ্রব্যে অন্যান্য বিষাক্ত রাসায়নিকের ব্যবহার সমানে চলছে। খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল ও ফরমালিন বা বিষাক্ত রাসায়নিকের ব্যবহার এবং শেষমেশ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এ ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

বাংলাদেশে দ্রব্যমূল্যের অহেতুক বৃদ্ধিকে অধিক মুনাফা অর্জনের অসৎ মানসিকতাপ্রসূত এক ধরনের ‘জুলুম’ বলে অভিহিত করা যায়। পণ্যে ভেজাল দেয়া বা ফরমালিনসহ ক্ষতিকর রাসায়নিক মেশানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। যে পরিবেশ ও আর্থ-প্রশাসনিক ব্যবস্থায় এটা ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকে, সে ব্যবস্থায় দায়িত্বশীলরা এর দায় এড়াতে পারেন না। এসব অন্যায়-অনিয়মের উৎস বন্ধ না করে অন্যায়-অনিয়ম সংগঠিত হওয়ার পর তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা যুক্তিযুক্ত ও কার্যকর পদক্ষেপ হতে পারে না। যেমন- দুর্নীতি দমনের কাজ দুর্নীতি সংঘটিত হওয়ার পর শুরু করার মানে হল নিহত ব্যক্তির পোস্টমর্টেম করা মাত্র। ক্ষতি যা হওয়ার তা হওয়ার পর দুঃখ ও বেদনার মাত্রা নির্ণয় করা। এসবের অবসানে সমস্যার উৎস পর্যায় থেকেই জবাবদিহিতা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা জরুরি। সমস্যার গভীরে না গিয়ে প্রতিবিধানের চেষ্টা করা হলে দিন দিন পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে বাধ্য।

নকল, ভেজাল ও মুনাফা সম্পর্কে রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক অনুশাসনের বিষয়টি অনেকেরই অজানা, আবার যাদের জানা তারা না-জানার ভান করেন। বিষয়গুলো সবার সজ্ঞান মানসিকতায় আনা দরকার। অধিক মুনাফা অর্জনের আকাঙ্ক্

ফেসবুকে লাইক দিন