বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে জিপিএ নম্বর থাকছে না

অনলাইন ডেস্ক :
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএর কোনো নম্বর কাউন্ট করা হবে না। শুধু ভর্তি পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে পারবেন।শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ভর্তি কমিটির সদস্য সচিব ও রেজিস্ট্রার ( অতিরিক্ত দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মো. মুহসিন উদ্দীন।[inside-ad-1]প্রফেসর ড. মো: মুহসিন উদ্দীন জানান, আমরা এসএসসি ও এইচএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএর উপর কোনো নম্বর রাখছি না। শুধু ভর্তি পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তি হতে পারবে শিক্ষার্থীরা। তবে দু’জন শিক্ষার্থীর ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর সমান হলে সেক্ষেত্রে মেধাক্রম তৈরির জন্য এসএসসি ও এইচএসসির জিপিএ নম্বর কাউন্ট করা হবে।প্রফেসর ড. মো: মুহসিন উদ্দীন জানান, আমরা এসএসসি ও এইচএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএর উপর কোনো নম্বর রাখছি না। শুধু ভর্তি পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তি হতে পারবে শিক্ষার্থীরা। তবে দু’জন শিক্ষার্থীর ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর সমান হলে সেক্ষেত্রে মেধাক্রম তৈরির জন্য এসএসসি ও এইচএসসির জিপিএ নম্বর কাউন্ট করা হবে।এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুরের বিভিন্ন গ্রুপে ছড়িয়ে পড়ে ১০ টাকা আবেদন ফি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের। এবিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের আবেদন ফি ১০ টাকা নয় ৫০০ টাকা। যে ওয়েবসাইট থেকে বিষয়টি ছড়িয়েছে সেটা শুক্রবার সকাল ১০ টায় ওপেন করা হয়েছে। এর আগে আমরা টেস্ট করছিলাম ওয়েবসাইটটা ঠিক মতো কাজ করছে কি না। এজন্য আমরা নিজেদের মধ্যের লোকেরা আবেদনকারী সেজে আবেদন করে দেখা হচ্ছিল। টেস্ট করার জন্য একটা আবেদন ফি যুক্ত করার প্রয়োজন ছিল যে টাকা ঠিক মতো জমা হচ্ছে কিনা। এজন্য পরীক্ষামূলক ফি ১০ টাকা রাখা হয়েছিল। মূলত আমাদের আবেদন ফি ৫০০ টাকা। ১০ টাকা আবেদন ফি ছড়িয়ে পড়া দুঃখজনক।এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ভর্তি কমিটির সদস্য সচিব প্রফেসর ড. মো: মুহসিন উদ্দীন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।এতে ভর্তি আবেদনের সময়সীমা রাখা হয়েছে শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ৩০ নভেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত। প্রত্যেক ইউনিটের আবেদন ফি ৫০০ টাকা। এছাড়াও সুযোগ রয়েছে শাখা পরিবর্তনের।এবছর বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে শাখা পরিবর্তনের সুযোগসহ ‘এ’ ইউনিটের আসন সংখ্যা ৭২৬, ‘বি’ ইউনিটের আসন সংখ্যা ৩৯৮ এবং ‘সি’ ইউনিটের আসন সংখ্যা ৩১৬ জন।অন্যদিকে এ,বি,সি ইউনিটের মোট আসন (১৪৪০) অতিরিক্ত ৫ শতাংশ হিসেবে ৭২টি আসন বিভিন্ন কোটায় আবেদনকারী প্রার্থীদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে।

ফেসবুকে লাইক দিন