আফগানিস্তানে ইসলামী রাষ্ট্র কায়েম,তালেবান বাহিনীর দখলে রাজধানী ।।

অনলাইন ডেস্কঃ-

আফগানিস্তানে গত তিন মাসে একের পর এক শহর দখলের পর তালেবানরা রাজধানী কাবুলে ঢুকে পড়েছে। রক্তপাতহীনভাবে ক্ষমতা দখলের জন্য চারদিক থেকে কাবুল ঘিরে রেখে শুরু করেছে আলোচনা। ইতিমধ্যে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি দেশ ছেড়েছেন। অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট হিসেবে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কূটনীতিক আলী আহমাদ জালালির কাছে ক্ষমতা দিয়ে দেশ ছাড়েন গনি। এরপরই তালেবানরা প্রেসিডেন্ট প্যালেস নিয়ন্ত্রণে নেয়। সবকিছু মিলিয়ে আফগান সরকারের পতন ঘটেছে কাবুলে। এখন তালেবান সরকারের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা শুধু সময়ের অপেক্ষা। ধারণা করা হচ্ছে, তালেবান সরকারের প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন মোল্লা আবদুল গনি বারাদার।

গতকাল সকালে জালালাবাদ শহর দখলের পর আফগানিস্তানের প্রধান বিমানঘাঁটি দখলে নেয় তালেবান। পরে কাবুলের সব প্রবেশমুখ দখলে নেয় তারা। তালেবানের একজন মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানায়, বাহিনীটির কিছু সদস্য রাজধানী কাবুলে ঢুকেছেন। এতে তাদের তেমন বেগ পেতে হয়নি। তবে তাদের নেতাদের পক্ষ থেকে মূল বাহিনীকে কাবুল শহরে না ঢুকে দোরগোড়ায় থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তারা শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের অপেক্ষায় আছেন। এটা কয়েক দিনের মধ্যেই হবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে তারা লোকজনকে বিশেষ করে কাবুলের জনগণকে আশ্বস্ত করতে চান যে তাদের জীবন ও সম্পদ নিরাপদ থাকবে। শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের কথা বলেছে আফগান সরকারও। স্থানীয় টোলো টিভিতে প্রচারিত আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভিডিওবার্তায় বলা হয়েছে, একটি অন্তর্বর্তী সরকারের কাছে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর হবে। কাবুলের ওপর কোনো আক্রমণ হবে না। অন্যদিকে দেশের বিভিন্ন এলাকা তালেবানের দখলে চলে যাওয়ায় হাজার হাজার মানুষ নিরাপত্তার আশায় কাবুলে এসে আশ্রয় নিয়েছিল কয়েক দিন ধরে। এখন তারা মরিয়া হয়ে কাবুল ছাড়ার চেষ্টা করছে। কোন পথে শহর ছাড়বে মানুষ তা ঠিক করতে হিমশিম খাওয়ায় রাস্তায় গাড়ির লম্বা লাইন তৈরি হয়েছে। এর আগে পাকিস্তান তাদের সঙ্গে তোরখাম সীমান্ত পারাপার চৌকি বন্ধ করে দেয়। ফলে শহর থেকে বের হওয়ার পথ ছিল কাবুল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। তাই কিছু মানুষ তাদের গাড়ির মধ্যে চাবি রেখেই গাড়ি থেকে নেমে পড়েছে এবং হেঁটে বিমানবন্দরের দিকে গেছে।

সবার জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা তালেবানের : বর্তমান আফগান প্রশাসনের বিভিন্ন পদে কর্মরত অথবা অতীতে পশ্চিমাদের পক্ষে কাজ করা সবার জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে আফগানিস্তানে ক্ষমতা দখলের দ্বারপ্রান্তে থাকা তালেবান। মুখপাত্র সুহাইল শাহিন এক টুইটে বলেন, ‘যারা এর আগে “আগ্রাসনবাদীদের” জন্য কাজ করেছেন বা তাদের সাহায্য করেছেন অথবা এখন যারা “দুর্নীতিবাজ” কাবুল প্রশাসনের বিভিন্ন পদে কর্মরত সবার জন্য আইইএ (ইসলামিক আমিরাত অব আফগানিস্তান) দরজা খোলা রেখেছে এবং এরই মধ্যে ক্ষমা ঘোষণা করেছে। আমরা তাদের আরেকবার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি যেন তারা দেশ ও জাতির সেবায় কাজ করতে এগিয়ে আসেন।’ এর আগে সশস্ত্র গোষ্ঠীর এই মুখপাত্র বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমরা আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি ও অন্য নেতাদের আমাদের সঙ্গে কাজ করার আহ্‌বান জানাচ্ছি।’ তালেবান নারীদের বিষয়ে আগের রক্ষণশীল অবস্থা থেকে সরে আসবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। শাহিন বলেন, ‘আফগান নারীরা চাইলে বাড়ির বাইরে বের হতে পারবেন, তবে অবশ্যই হিজাব পরতে হবে।’ তিনি আরও জানান, ‘তালেবানরা ক্ষমতা গ্রহণের পর গণমাধ্যমকে সমালোচনা করার অনুমতি দেওয়া হবে। কিন্তু সচেতনভাবে সংবাদ পরিবেশন করতে হবে এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধের বিচার আদালত পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকবে।’

কাবুলের দেয়াল থেকে মোছা হচ্ছে নারীর ছবি : দুই দশক পর আবারও তালেবান শাসন শুরু হতে যাচ্ছে আফগানিস্তানে, তার আগেই কাবুলের বিভিন্ন দেয়াল থেকে মুছে ফেলা হচ্ছে নারীদের ছবি। আফগানিস্তানের টেলিভিশন স্টেশন টোলো নিউজের প্রধান লুৎফুল্লাহ নাজাফিজাদা গতকাল এ রকম একটি ছবি টুইটারে শেয়ার করেছেন। সেখানে দেখা যাচ্ছে, এক লোক কাবুলের একটি দেয়াল থেকে পণ্যের বিজ্ঞাপন হিসেবে থাকা নারীদের ছবি মুছে ফেলতে চুনকাম করছেন। বিবিসি লিখেছে, তালেবান বাহিনীর অগ্রযাত্রার মধ্যে কাবুলে বিভিন্ন পেশায় যুক্ত নারীরা কয়েক দিন ধরেই সাহায্যের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন করছিলেন। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তালেবানি শাসনামলে আফগানিস্তানে নারীদের মুখ, চুলসহ সম্পূর্ণ দেহ ঢাকা বোরকা পরা বাধ্যতামূলক ছিল। বয়ঃপ্রাপ্ত হলেই মেয়েদের স্কুলে যাওয়া ছিল নিষিদ্ধ।

মার্কিন কূটনীতিকদের আফগানিস্তান ত্যাগ : শেষ মুহুর্ত হেলিকপ্টারে করে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল থেকে মার্কিন কূটনীতিকদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশালাকৃতির দুই ইঞ্জিনবিশিষ্ট চিনুক ও দ্রুতগতির ব্ল্যাকহক হেলিকপ্টারগুলোকে দূতাবাসের স্টাফদের সরিযে নেওয়ার কাজে লাগানো হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, একটির পর একটি হেলিকপ্টার দূতাবাসের ভিতরে নামছে, আর কিছুক্ষণের মধ্যেই যাত্রী বোঝাই করে উড়ে যাচ্ছে। কূটনৈতিক সাঁজোয়া যানের বহর মার্কিন দূতাবাস এলাকা ত্যাগ করতে দেখা গেছে। তাদের কাবুল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিমানবন্দরটি এখন বিভিন্ন দেশের লোকে পরিপূর্ণ, যেখানে কূটনীতিক, ঠিকাদার এবং বেসামরিক লোক সবাই কাবুল ছাড়ার অপেক্ষায় সমবেত হচ্ছেন। গতকাল স্থানীয় সময় মার্কিন দূতাবাসের ছাদ থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছে। দূতাবাসের কর্মীরা সিআইএর গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট পুড়িয়ে ফেলতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ সময় দূতাবাসে মার্কিন পতাকা নিচু করে উড়তে দেখা যায়। যা দূতাবাস বন্ধ বলে ইঙ্গিত দিচ্ছে। এদিকে, আসন্ন দিনগুলোয় সহায়তা করার জন্য বিদেশিদের আফগানিস্তান না ছাড়ার আহ্‌বান জানিয়েছে তালেবান। তবে যুক্তরাষ্ট্র আর ব্রিটেন তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নিলেও দূতাবাসের কর্মীদের সরিয়ে নেওয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছে রাশিয়া।

কাবুল ছাড়ল শেষ এয়ার ইন্ডিয়া বিমান : আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল ছেড়েছে শেষ এয়ার ইন্ডিয়া বিমান। এর আগে আফগানিস্তানে তুমুল উত্তেজনার মধ্যে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানটি কাবুলে অবতরণ করে। হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, দুপুরের পরপরই এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানটি কাবুলে আটকে পড়া কর্মীদের আনতে যায়। ভারত থেকে আফগানিস্তানে পৌঁছাতে লাগে ২ ঘণ্টা ২০ মিনিট। কিন্তু আফগানিস্তানে পৌঁছালেও বিমানটি অবতরণের অনুমতি পায় না। কারণ ততক্ষণ তালেবান যোদ্ধারা কাবুলে ঢুকতে শুরু করেছে। ভারতের বিমানটি প্রায় এক ঘণ্টা আকাশে উড়তে থাকে। পাইলট প্লেনের রাডার অফ করে দেন যাতে এটি শনাক্ত করে কেউ হামলা চালাতে না পারে। দীর্ঘ এক ঘণ্টা পর চাপা উত্তেজনার মধ্যে বিমানটি কাবুল বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ভারতের গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, নয়াদিল্লি থেকে কাবুল পর্যন্ত সপ্তাহে তিনবার বিমান চলাচল করত। আফগানিস্তানে তালেবানের রাজ শুরু হতেই দুই দেশের মধ্যে বিমান উড্ডয়ন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। গতকাল সকালেও দিল্লি কাবুলে একটি চার্টার বিমানসেবা বাতিল করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট প্যালেস তালেবানের হাতে : আফগান প্রেসিডেন্ট প্যালেসের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তালেবানরা। কাবুলে থাকা তালেবানের শীর্ষ দুই কমান্ডার বলেন, প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি দেশ ছাড়ার পর তারা প্যালেসের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। খবরে বলা হয়, জ্যেষ্ঠ সহযোগীদের নিয়ে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি কাবুল ত্যাগ করার পর প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের কর্মীদের সবাইকে সরে যেতে বলা হয়। কর্মীরা তখন প্রাসাদ খালি করে চলে যান।

বিমানবন্দরসহ বিভিন্ন স্থানে গোলাগুলি : রয়টার্সের সর্বশেষ খবরে বলা হয়েছে, কাবুলের উপকণ্ঠে সংঘর্ষে ৪০ জনের বেশি মানুষ আহত হয়েছেন। কাবুলের একটি হাসপাতাল টুইট করে এ তথ্য জানায়। তালেবানরা কাবুলে ঢোকার পর এ ঘটনা ঘটে। টুইটে আরও বলা হয়, হাসপাতালে আসা লোকজনের বেশির ভাগই কারাবাগ এলাকায় সংঘর্ষে আহত। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, কাবুলের বিভিন্ন অংশে গোলাগুলি হয়েছে।

যোদ্ধাদের কাবুল প্রবেশের নির্দেশ : কাবুলের নিয়ন্ত্রণ দখল করার কয়েক ঘণ্টা পর তালেবানের পক্ষ থেকে তাদের যোদ্ধাদের সীমিত আকারে প্রবেশের নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর যোদ্ধারা কাবুল শহরের ভিতর প্রবেশ শুরু করে। এর আগে তারা শহরের চারদিকে অবস্থান করছিল

ফেসবুকে লাইক দিন