আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ শনিবার, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২৪ ইং, ২০শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরী

আতশবাজিতে নতুন বছরকে স্বাগত

আতশবাজি আর ফানুস উড়ানোর মধ্য দিয়ে ২০২২ সালকে বরণ করল রাজধানীবাসী। রাত ১২টা বাজার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় আতশবাজি। আতশবাজির বর্ণিল আলো আর ফানুসে ছেয়ে যায় ঢাকার আকাশ।উন্মুক্ত স্থানে আয়োজনে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বিভিন্ন ভবনের ছাদে আয়োজন শুরু হয়। ডিএমপির পক্ষ থেকে ছিল বিধিনিষেধ আর নিরাপত্তার কড়াকড়ি।শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কে পুলিশ, র‍্যাব, সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নেন। বন্ধ রাখা হয় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। সীমিত ছিল যান চলাচল।২০২২ বরণ উদযাপনের ফানুষ থেকে রাজধানীর অন্তত ৭টি এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। মধ্যরাতের এসব আগুনের ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।উল্লেখযোগ্য ক্ষয়ক্ষতি হয়নি সম্পদেরও। তবে এটি ভবিষ্যতের জন্য সতর্কবার্তা দিয়ে গেলো বলে মনে করছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।রাত বারোটা বাজার আগে থেকেই রাজধানীর আকাশ দখলে নিয়েছিলো দৃষ্টিনন্দন ফানুস। ২০২১ কে বিদায় জানিয়ে ২০২২কে বরণ করে নেয়ার মূহুর্তে দখল আরও বিস্তার লাভ করে। সঙ্গে যোগ হয় বর্ণিল আতশবাজি।চোখ ধাঁধানো আলোর ঝলকানিতে ঢাকার আকাশকে উজ্জ্বল করে ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম প্রহর উদযাপন শুরু করে রাজধানীবাসি।তবে হাজার হাজার ফানুষের উপস্থিতিতে যে মনোমুগ্ধকর দৃশ্যপটের অবতারণা হয় তাতে অল্প সময়েই ছেদ টানে নগরের বিভিন্ন এলাকার অন্তত সাতটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা।সবকটি আগুনের সূত্রপাতই হয় ফানুস থেকে। রাজধানীর মিরপুর, মুহাম্মদপুর, লালবাগ, সূত্রাপুরসহ বিভিন্ন এলাকার এসব আগুনের ঘটনার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলো মাতুয়াইল স্কুল রোডের দুটি ভবনের আগুন। প্রথমে তিনতলা একটি ভবনের ছাদে থাকা প্লাস্টেকের ঝুড়িতে আগুন লাগার পর তা ছড়িয়ে পড়ে লাগোয়া আরেকটি ভবনেও। গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আগের লেলিহান শিখায় আতঙ্কিত এলাকাবাসি। ফায়ার সার্ভিস পৌঁছার আগেই দ্রুত আগুন নেভানোর চেষ্টায় উদ্যোগী হয় তারা। অল্প সময়ের মধ্যে যুক্ত হয় ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট। মিনিট পনেরোর চেষ্টায় সহজেই নিয়ন্ত্রণে আসে আগুন।হতাহতের ঘটনা না ঘটা বা ভবনের বড় কোন ক্ষতি না হলেও এ আগুন সর্বনাশী হতে পারতো বলে মনে করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা। তারা চান উদযাপনের সতর্কতা।তা না হলে ভবিষ্যতে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা ফায়ার সার্ভিসকর্মীদের। কন্ট্রোলরুম নিশ্চিত করেছে রাজধানীর অন্য আগুনের ঘটনাগুলো ছিলো একেবারেই ছোট।এদিকে, করোনা মহামারির মধ্যেই নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানাচ্ছে বিশ্ববাসী। বর্ণিল আতশবাজিতে বিভিন্ন শহরে বরণ করে নেয়া হয় ২০২২ সালকে। করোনা পরিস্থিতির কারণে বর্ষবরণের আয়োজনে সীমিত রাখা হয় লোকসমাগম।ইংরেজী নতুন বছর বরনের অন্যতম আকর্ষণ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারের আয়োজন। করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ বাড়ায় এবছর কিছুটা সীমিত করা হয়েছে দর্শনার্থীর সংখ্যা।গতবছরের মতো এবছরও বাতিল হয়েছে লন্ডনের ঐতিহ্যবাহী ট্রাফেলগার স্কয়ারের আয়োজন। তবে বর্ষবরণ উপলক্ষ্যে চার বছর ধরে বাজানো হচ্ছে বিগ বেন।
দুর্ঘটনা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে এবছর আতোশবাজির আয়োজন বাতিল করেছে জার্মান সরকার। বরাবরের মতো এবারও বর্ষবরণের বিশেষ আয়োজন করা হয় স্পেনের মাদ্রিদের পুয়ের্তো ডেল সোল স্কয়ারে।কঠোর লকডাউন জারি না করলেও সীমিত করা হয়েছে দর্শণার্থীর সংখ্যা। নববর্ষ উদযাপনে হংকংয়ে আয়োজন করা হয়েছে কনসার্টের।

ফেসবুকে লাইক দিন