আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ মঙ্গলবার, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে মে, ২০২৪ ইং, ১২ই জিলক্বদ, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

মনোচিকিৎসায় সাইক্রিয়াটিক সমাজকর্মের ভুমিকা

ভোলার খবর ডেস্ক: মানসিক হাসপাতাল পরিবেশে মানসিক স্বাস্থ্য সেবাদানের ক্ষেত্রে সমাজকর্মের যে শাখা কাজ করে সে শাখাকে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্ম বলা হয়। সমাজকর্মের একটি বিশেষ শাখা হচ্ছে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্ম যা মানসিক স্বাস্থ্যসেবায় প্রয়োগ করা হয়। সমাজকর্ম অভিধানের (১৯৯৫) সংজ্ঞানুযায়ী, সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্ম হলো মানসিক স্বাস্থ্যসেবাকেন্দ্রে সমাজকর্মের প্রয়োগ। সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মী মনোচিকিৎসক এবং মানসিক স্বাস্থ্যসেবা কর্মী দলের অন্যান্য সদস্যদের সহযোগিতায় মনোচিকিৎসা ও অন্যান্য সমাজসেবার ব্যবস্থা করে থাকেন। তিনি একই উদ্দশ্যে রোগীর পরিবারের সদস্যদের সাথে কাজ করে থাকেন। সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মের ইতিহাস আমেরিকার নিউইয়র্ক সিটি হাসপাতালে ১৯০৭ সালে সর্বপ্রথম সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মী নিয়োগ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯২৬ সালে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মীদের পেশাগত সংগঠন আমেরিকান এসোসিয়েশন অব সাইকিয়াট্রিক সোশ্যাল ওয়ার্কাস গঠিত হয়। এরপর ১৯৫৫ সালে উক্ত সংগঠনটিকে আমেরিকার ন্যাশনাল এসোসিয়েশন অব সোশ্যাল ওয়ার্কাস (NASW) এর সাথে সমন্বিত করা হয়। বর্তমানে মানবীয় সমস্যার অন্যতম দিক হচ্ছে মানসিক সমস্যা বা মানসিক ব্যাধি। চিকিৎসক এবং মনোচিকিৎসক অসুস্থতার চিকিৎসা করে থাকেন। তাঁরা এর সাথে সম্পর্কিত মানবিক সম্পর্কের সমস্যা সমাধান করেন না। মানবিক সম্পর্ক থেকে সৃষ্ট সমস্যা মোকাবিলা ও মানসিক সুস্থতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মের গুরুত্ব অপরিসীম। সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্ম মানসিক রোগীর রোগের কারণ নির্ণয় করে পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে সেবা সহায়তা প্রদান এবং সামজে পুনর্বাসিত করার প্রয়াস চালায় যা একজন সমস্যাগ্রস্ত ব্যক্তির জীবনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিল্পবিপ্লবোত্তর আধুনিক সমাজে জটিল ও বহুমুখী সামাজিক সমস্যা, নিরাপত্তাহীনতা, পারিবারিক ও সামাজিক বিশৃঙ্খলা এবং মনো-সামাজিক দ্বন্দ্ব ও টানাপোড়নের ফলে মানসিক রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। এছাড়া বংশগতি, শারীরিক জটিলতা, পরিবেশের ভারসাম্যহীনতা, জীবনধারণ প্রক্রিয়ার পরিবর্তন, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনে দ্বন্দ্ব ও বিভেদ, মাদকাসক্তি প্রভৃতিক কারণে প্রতিনিয়ত মানসিক স্বাস্থ্যহানি ঘটছে। আর এক্ষেত্রে সাইকিয়াট্রিক সমাজকমের্র জ্ঞান অপরিহার্য।
মানসিক রোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সামাজিক ভূমিকা উন্নয়নে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মের গুরুত্ব অপরিসীম। সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মীরা মানসিক রোগীদের আচরণ সংশোধনে পরিবেশগত এবং সামাজিক সম্পদ ব্যবহারে সাহায্য করেন। মানসিক রোগ চিকিৎসায় সামাজিক সম্পর্ক উন্নয়ন, বস্তুগত এবং অবস্তুগত সম্পদের সদ্ব্যবহারে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মীরা ভূমিকা পালন করেন। সমাজকর্মের জ্ঞান ও দক্ষতা প্রয়োগের মাধ্যমে সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মীরা সমস্যার কার্যকর ও বাস্তবসম্মতভাবে মোকাবিলা করে থাকেন। সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মী রোগীর রোগের কারণ নির্ণয় করে পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে সেবা সহায়তা প্রদান এবং সামজে পুনর্বাসিত করার প্রয়াস চালায় যা গুরুত্বপূর্ণ। মানসিক রোগীর চিকিৎসায় চিকিৎসক এবং মনোচিকিৎসকগণ হাসপাতাল কেন্দ্রীক চিকিৎসার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন। মনোচিকিৎসগণ রোগীকে একক ব্যক্তি হিসেবে চিকিৎসা প্রদান করে থাকেন। এক্ষেত্রে তিনি প্রধানত অবচেতন (unconscious), পারস্পরিক মানসিক উপাদান (inter-psychic factor) এবং রোগীর ব্যক্তিত্যের (individual personality) সামঞ্জস্যহীনতার চিকিৎসা করেন। অন্যদিকে, সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মী মানসিকভাবে অসুস্থ ব্যক্তিকে কোনো একক ব্যক্তি হিসেবে নয়, সামগ্রিকভাবে বিবেচনা করেন। সমস্যাগ্রস্ত মানসিক রোগীকে তার পরিবারসহ সামাজিক পরিবেশের আলোকে মূল্যায়ন করেন। ফলে মানসিক রোগীর চিকিৎসা কার্যকরী এবং ফলপ্রসূ হয়। বর্তমান শিল্পসমাজে তথা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগে ব্যক্তি এবং পরিবেশের মিথস্ক্রিয়া থেকে সৃষ্ট মানসিক অসুস্থতা মোকাবিলায় সাইকিয়াট্রিক সমাজকর্মের গুরুত্ব ও তাৎপর্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। লেখক মো: বিল্লাল হোসেন জুয়েল (শিক্ষক, সাংবাদিক ও গবেষক)

ফেসবুকে লাইক দিন