আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ বুধবার, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে মে, ২০২৪ ইং, ১৩ই জিলক্বদ, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

তজুমদ্দিনে আগুনে পুড়ে ১৩ দোকান ছাই পাঁচ কোটি টাকা ক্ষতি

হেলাল উদ্দিন লিটন, তজুমদ্দিন (ভোলা): ভোলার তজুমদ্দিনে বিদ্যুৎতের সটসার্কিট থেকে আগুন লেগে ১৩টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ৫ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা। শনিবার (২৮ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টায় দক্ষিণ খাসেরহাট বাজারে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তবে তজুমদ্দিন ফায়ার সার্ভিস কর্মিদের বিরুদ্ধে ঘটনাস্থলে দেরিতে আসার অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের। তাদের দাবী ফায়ার সার্ভিস দ্রুত আসলে ক্ষতি আরো কম হতো।
তজুমদ্দিন ফায়ার ষ্টেশনের সাব-অফিসার কামরুল ইসলাম জাকির বলেন, শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে মোঃ ফরিদ উদ্দিনের মালিকানাধী সানজিদা গার্মেন্টেসের বিদ্যুৎতের সটসার্কিট থেকে আগুনের সুত্রপাত ঘটে। দোকানঘরগুলি কাঠ ও টিনের হওয়ায় আগুনের লেলিহান শিখা মুহুর্তে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ভোলা জেলা ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারি পরিচালক লিটন আহাম্মেদের নেতৃত্বে তজুমদ্দিন, লালমোহন, বোরহানউদ্দিন ও ভোলা ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিটসহ স্থানীয়দের সহায়তায় প্রায় ৩ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই। তবে ক্ষয়ক্ষতি তালিকা এখনো প্রস্তুত করা হয়নি তদন্ত করে ক্ষতির তালিকা করা হলে তখন বলা যাবে কি পরিমাণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ব্যবসায়ীরা।
আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়া দোকানের মধ্যে আলম ষ্টোর, অলিউদ্দিন ষ্টোর, রহমান কসমেটিকস, মহিউদ্দিনের চায়ের দোকান, জিন্নাহ মেডিকেল, গিয়াসের চায়ের দোকান, আজাদের ফলের দোকান, সানজিদা গার্মেন্টস, অজিত ফার্মেসী, হক ষ্টোর, জুয়ের সু ষ্টোর, নাজিম ষ্টোর ও বীর বিক্রম ক্লাবসহ ১৩টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
আগুনে পুড়ে যাওয়া হক ষ্টোরের মালিক মো. লোকমান হোসেন বলেন, আমরা রাতে দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে আসি। রাত ১২টায় ফরিদের গার্মেন্টস থেকে বিদ্যুৎতের আগুনে আমার দোকানসহ ১৩ দোকান পুড়ে যায়। এতে আমার প্রায় ৩০/৩৫ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়। সকল ব্যবসায়ীদের প্রায় ৫ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। যার ফলে আমরা সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছি।

ফেসবুকে লাইক দিন