আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ রবিবার, ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ ইং, ১১ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

ঝালকাঠি নেছারাবাদের বার্ষিক মাহফিলের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

মশিউর রহমান রাসেল, ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠি নেছারাবাদের বার্ষিক মাহফিল (২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি) সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।
লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে বৃহস্পতিবার ঝালকাঠি নেছারাবাদের বার্ষিক মাহফিল শুরু হচ্ছে। বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও দার্শনিক, মতানৈক্যসহ ঐক্যনীতির প্রবক্তা হযরত মাওলানা আযীযুর রহমান কায়েদ সাহেব হুজুরের প্রতিষ্ঠিত ঝালকাঠির নেছারাবাদ দরবারে দুই দিনব্যাপী বার্ষিক ঈছালে ছওয়াব ও ওয়াজ শুরু হবে। এনএস কামিল মাদরাসা ময়দানে এদিন বিকেল ৩টায় শুরু হয়ে শেষ হবে শনিবার বাদ ফজর আখেরি মুনাজাতের মধ্য দিয়ে। ওয়াজ মাহফিলের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।
প্রথম দিন বাদ মাগরিব উদ্বোধনী বয়ান করবেন মাহফিলের সভাপতি কায়েদ সাহেব হুজুরের একমাত্র সাহেবজাদা আমীরুল মুছলিহীন হযরত মাওলানা মুহম্মদ খলীলুর রহমান নেছারাবাদী। দুই দিনব্যাপী মাহফিলে তিনি কয়েক পর্বে বয়ান করবেন। তিনি আখেরি মুনাজাত পরিচালনা করবেন।
নেছারাবাদ ইসলামী কমপেক্সের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মাহবুবুর রহমান জানান, ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি দু’দিনব্যাপী বার্ষিক মাহফিলে বুধবার দুপুরের পর থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মুসল্লি ও ভক্তরা আসতে শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার আছর নামাজ শেষে স্থানীয় আলেম-ওলামারা আলোচনা করবেন।
মাহফিল বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক ও এনএস কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা গাজী শহিদুল ইসলাম জানান, ইতোমধ্যে মাহফিলের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয়েছে পাঁচটি প্যান্ডেল। আগত মেহমানদের সেবায় পাঁচ হাজার স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকেও ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও বিশুদ্ধ পানি ও প্রয়োজনীয় শৌচাগারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠাতা কায়েদ ছাহেব হুজুর (রহ.) এর নাতি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ শহিদুল হক জানান, দল-মত নির্বিশেষে সকল মুসলমানের এক আধ্যাত্মিক মিলনমেলা। সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেমেদ্বীন, ইসলামী চিন্তাবিদ, ওলীয়ে কামেল, মুজাদ্দেদে মিল্লাত হযরত মাওলানা মুহম্মদ আযীযুর রহমান নেছারাবাদী কায়েদ ছাহেব হুজুর রহ. বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষের হেদায়াতের প্রত্যাশায় এ মাহফিল চালু করেন। পঁচাত্তর বছর ধরে চলে আসা এ মাহফিল ইসলামী জ্ঞান চর্চার এক বাস্তবসম্মত পদ্ধতি, ইসলামের মৌলিক বিষয়াদী হাতে-কলমে শেখার এক অনন্য উপায়, শুধু সুরের মূর্ছনা নয়, আত্মার খোরাক জোগানোর এক রূহানী অবলম্বন, মহান রবের কাছে বান্দার আত্মসমর্পণের এক সুমহান প্রশিক্ষণ, সমসাময়িক নানা সমস্যার সমাধানে সঠিক দিকনির্দেশনার কেন্দ্র এবং ইসলামী জাগরণের এক প্রকৃষ্ট মাধ্যম।
তিনি আরো বলেন, নেছারাবাদের বার্ষিক মাহফিল শুধু প্রচলিত ধারার ওয়াজ-মাহফিল নয়। এখানে দেশের অনেক বরেণ্য আলেম আসেন আল্লাহর ওলীদের সোহবত নেয়ার জন্য। হযরত কায়েদ ছাহেব হুজুর রহ.-এর জীবদ্দশায় তাঁর সাথে দেখা করা ও তাঁর দোয়া নেয়ার জন্য দেশের নানা প্রান্ত থেকে ধর্মপ্রাণ মানুষেরা আসতেন। হুজুর আমাদের মাঝে না থাকলেও তাঁর ভক্তরা হুজুরকে ভোলেননি। মাহফিলকে কেন্দ্র করে লক্ষ-লক্ষ ভক্ত-মুরীদান নেছারাবাদে এসে তাঁর মাযার যেয়ারত করেন। দেশবরেণ্য অনেক বক্তা ওয়াজ করার জন্য নয়, শুধু দোয়া নেয়ার জন্য হাজির হন মোখলেস এ বুযর্গের দরবারে।
ড. শহিদুল হক আরো বলেন, হযরত কায়েদ ছাহেব হুজুর রহ.-এর অবর্তমানে তাঁর সুযোগ্য সন্তান, আমীরুল মুছলিহীন হযরত মাওলানা মুহম্মদ খলীলুর রহমান নেছারাবাদী (নেছারাবাদী হুজুর) মাহফিলের পরিসর বহুগুণ বৃদ্ধি করেছেন। তার হেদায়াতী বয়ান আপমর জনতার হৃদয়ের খোরাক। তার বিপ্লবী ভাষণ তরুণ-সমাজকে আন্দোলিত করে। তার আবেগভরা দোয়ায় কায়েদের কণ্ঠ ভেসে ওঠে আমাদের আত্মায় আর এর স্পন্দন ছড়িয়ে পড়ে লাখো বনী-আদমের সত্তায়। তার সুনিপুণ ব্যবস্থাপনা আধুনিক ব্যবস্থাপকদেরও হার মানায়।
নেছারাবাদের মাহফিল শুধু সাধারণ মানুষের জন্যই নয়, এতে জড়ো হন হযরত কায়েদ ছাহেব হুজুরের প্রাণের সংগঠন মুছলিহীনের নেতা-কর্মীরা। সারা বিশ্বব্যাপী ‘ইত্তেহাদ মায়াল ইখতেলাফ’ তথা ‘মতানৈক্যসহ ঐক্য’ দর্শনের ভিত্তিতে ইসলামের দাওয়াত ছড়িয়ে দেয়ার জন্য তারা গ্রহণ করেন অনেক বাস্তবমুখী কর্মসূচি।
প্রাক্তনদের উৎসব উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ মাহফিল নেছারাবাদ মাদরাসার ছাত্রদের জন্য এক আনন্দ-উৎসব। এ উপলক্ষ্যে তারা নিজেরাও ওয়াজ-নসীহত, তেলাওয়াত, ইসলামী সংগীতসহ নানাবিধ ইসলামী সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে শরীক হন। বার্ষিক মাহফিলকে কেন্দ্র করে তারা যে উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে প্রাকটিস করেন, তা তাদের পরবর্তী জীবনের জন্য এক মাইলফলক হিসেবে কাজ করে। নেছারাবাদের সাবেক ছাত্রদের মাঝ থেকে অনেক আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্বারী, বক্তা ও শিল্পীর অসাধারণ কৃতিত্ব মাহফিলের অবদানকে চির-উজ্জ্বল করে রাখছে। নেছারাবাদের মাহফিল সাবেক শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য এক মহাসম্মেলন। এ মহান উদ্যোগ সকলকে একত্রিত করার এক দারুণ সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়, নতুন করে প্রাণস্পন্দন ফিরে পায় ফারেগীন বন্ধুরা।
নেছারাবাদের মাহফিল হযরত কায়েদ ছাহেব হুজুরের এক অন্যতম কারামত। বহু মানুষ এ মাহফিলে দান করে নানারকম উপকার পেয়েছেন এবং পাচ্ছেন। আমাদের ছোটবেলা থেকে দেখেছি, বহু মানুষ অপেক্ষা করেন এ বরকতময় মুহূর্তের জন্য। কেউ প্যান্ডেল করার বাঁশ, কেউ খাবারের চাল, কেউ গরু-ছাগল-মুরগী দান করে মাহফিলে আগত মেহমানদের সম্মান জানিয়ে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য হন পাগলপারা। মহান আল্লাহ তায়ালা এ মাহফিলে সাহায্যকারীদের কীভাবে রহমত-বরকত দিয়ে ধন্য করেছেন, বিপদ থেকে রক্ষা করেছেন, তার সাক্ষী অসংখ্য মানুষ।
আজ এ মাহফিল শুধু দক্ষিণ অঞ্চলেই উচ্ছ¡াস জাগায় না বরং দেশব্যাপী পড়ে যায় নতুন সাড়া। নতুন প্রেরণায় উজ্জীবিত হয় ধার্মিক জনগোষ্ঠী। জেগে ওঠে সমস্যা-জর্জরিত মুসলিম উম্মাহ, সঠিক পথের দিশা খুঁজে পায় তৌহীদী জনতা।

ফেসবুকে লাইক দিন