আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ শুক্রবার, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং, ৭ই জিলহজ্জ, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

বছরে ৬ লাখ টাকার কুল বিক্রি করে ঝালকাঠির রহিম

মশিউর রহমান রাসেল, ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠি সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়নের কিস্তাকাঠি এলাকার যুবক রহিম সিকদার । তার বাবার সাথে ৩০০ শতাংশ জমিতে কুল চাষ করে সফল হয়েছেন। তিনি এখন আত্মনির্ভরশীলতার পথে।
শুধু চাকরির পেছনে না ঘুরে কীভাবে নিজে আত্মনির্ভর হওয়া যায় এরজন্য তার বাবার সাথে কুল চাষ শুরু করেন তিনি। সঠিক পরিচর্যায় ভালো ফলন হওয়ায় প্রতি বছর জমির পরিমাণ বাড়িয়ে এখন উৎপাদিত কুল বাজারজাত করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন তিনি।
বর্তমানে তাদের দুইটি বাগানে আপেল কুল, বাউকুল, বল সুন্দরী,নারিকেল সুন্দরী, কাশ্মীরী, থাই টক সহ ছয়,জাতের কুল রয়েছে।
বাগানে দাঁড়িয়ে নিজের অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে রহিম জানান, তার বাগানের কুল খুবই মিষ্টি ও সুস্বাদু। ঝালকাঠির আশেপাশের পাইকাররা তার বাগান থেকে কুল ক্রয় করে। তিনি আরও জানান তার বাগানে দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা খরচ হয়েছে। কোন ক্ষতি না হলে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকার কুল বিক্রি করা যায়।
কাওসার নামে এক কুল ক্রেতা বলেন, আমি বরিশাল থেকে এখানে কুল ক্রয় করতে এসেছি। তাদের কুল খুবই সুস্বাদু ও দামে কম। বিগত দুই বছর ধরে এখান থেকেই কুল ক্রয় করি।
পোনাবালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন খান বলেন, আমাদের ইউনিয়নে রহিম ছাড়াও অনেকেই কুল চাষ করেছে। কুল চাষ করে তারা সফল হয়েছে। তাছাড়া তাদের দেখাদেখি অনেকেই কুল চাষে আগ্রহী হচ্ছে। দূরদূরান্ত থেকে পাইকাররা এসে এখান থেকে কুল ক্রয় করে। এছাড়া অনেকে বাগান দেখতে আসে তখন কুল কিনে নিয়ে যায়।
ঝালকাঠি কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক কৃষিবিদ মনিরুল ইসলাম বলেন,ঝালকাঠিতে কুল চাষ দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তারা কুল চাষিদের প্রশিক্ষন, সার, সেচ ব্যবস্থাপনা সহ উন্নত জাত সম্পর্কে পরামর্শ প্রদান করছে।আমরা কুল চাষীদের উৎসাহিত করছি কুল যেহেতু লাভজনক এই কুল চাষে শিক্ষিত যুবক তরুণ কৃষক উদ্বুদ্ধ হয়ে এই কুল চাষ করছে। আশা করা যাচ্ছে কুল চাষের মাধ্যমে তাদের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাবে তেমনি আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটবে।

ফেসবুকে লাইক দিন