আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ বৃহস্পতিবার, ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ইং, ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

মোংলায় শীতের আগমনে লেপ–তোষক তৈরি শুরু

কাজী ওমর ফারুক, মোংলা প্রতিনিধিঃ বাতাস এখন হিম। দিনে গরম, রাতে একটু ঠান্ডা; আর ভোরে শীতল স্নিগ্ধ বাতাস। প্রকৃতিতে ছাতিম আর শিউলি ফুলের মিষ্টি ঘ্রাণ। চিরচেনা এই গন্ধই প্রকৃতিকে জানিয়ে দিচ্ছে শীতের আগমনী বার্তা। শীতের আগমনী বার্তার সাথে সাথে মোংলার লেপ-তোষক প্রস্তুতকারী ধুনকারদের মাঝে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। একইসঙ্গে গ্রামের বিভিন্ন পরিবারে পড়ে গেছে লেপ, কাঁথা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন এবং রোদে শুকানোর ধুম। অনেক পরিবারের গৃহবধুরা আবার মজুরির বিনিময়ে কাঁথা তৈরি করে দিয়ে সংসারে বাড়তি উপার্জন করবেন। লেপ-তোষক প্রস্তুতকারী বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা গেছে, মালিক-শ্রমিক, ধুনকাররা তুলাধোনায়, লেপ-তোষক তৈরির সেলাইয়ের কাজ শুরু করে দিয়েছেন।
তারা জানান, শীত মৌসুমের শুরুতেই ক্রেতারা লেপ-তোষকের দোকানে পছন্দমতো লেপ-তোষক তৈরির অর্ডার দিচ্ছেন। ধুনকার, ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জানা যায়, ভালো মুনাফা এবং বেশি বিক্রির আশায় এ সময়টাতে দিন-রাত পরিশ্রম করবেন। ক্রেতারাও লেপ-তোষক তৈরির জন্য ভিড় করছেন। শহরসহ উপজেলার ছোট-বড় হাটবাজারগুলোয় জাজিম, বালিশ, লেপ, তোষক তৈরি ও বিক্রির কাজে ধুনকার, ব্যবসায়ী নিয়োজিত রয়েছেন।
মোংলা শহরের লেপ-তোষক দোকানের মালিক বশির তালুকদার জানান, সারা বছরের মধ্যে এ শীত মৌসুমেই তারা কাজের বেশি অর্ডার পান। ফলে এ সময় তাদের কাজ বেশি করতে হয়। এক মৌসুমের আয় দিয়েই তাদের পুরো বছর চলতে হয়।
ইসরাফিল মিয়া নামের শহরের অন্য এক দোকান মালিক জানান, কাপড়ের মান বুঝে লেপ-তোষকের দাম নির্ধারণ করা হয়। গত বছরগুলোর তুলনায় এ বছর লেপ-তোষকের দাম একটু বেশি পড়বে। কেননা এ বছর কাপড় ও তুলা বাড়তি দামে কিনতে হচ্ছে।
কারিগর মিলন মিয়া জানান, শীত শুরু হতে না হতেই তাদের কর্মব্যস্ততা বেড়ে গেছে। তারা ৪-৫ হাতের একটি লেপ ২ ঘণ্টায় তৈরি করে দিতে পারেন। লেপ-তোষকের দোকানের মালিকরা আরও জানান, শীত মৌসুমে প্রত্যেকটি দোকানে ২ শতাধিক লেপ তোষক ও জাজিম কেনা-বেচা হয়।
এদিকে শীত মৌসুম শুরুতেই মোংলার বিভিন্ন গ্রাম্য পরিবারের গৃহবধূরা কাঁথা সেলাই শুরু করে দিয়েছেন। অনেক পরিবারই রয়েছে যারা কাঁথা সেলাইয়ের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ বা পরিবারে বাড়তি আয় করে থাকে।
মোংলার মিঠাখালী ইউনিয়নের মরিয়ম বেগম জানান, শহরের অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার শীত মৌসুম আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের কাছে কাঁথা সেলাই করে দেয়ার জন্য কাপড় সরবরাহ করেন। নকশা ভেদে এক একটি কাঁথা সেলাই করতে মজুরি বাবদ দেয়া হয় ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা। সাংসারিক ঝক্কিঝামেলা থাকলেও তার মতো অনেক গৃহবধু কাজের ফাঁকে ফাঁকে এভাবে প্রতি সিজনে ১০ থেকে ১৫ টি কাঁথা সেলাই করে নগদ আয় করছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন