সর্বশেষঃ

ভোলায় স্বামীর মামলায় স্ত্রী কারাগারে !!

বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধি!!
ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় স্বামী আল-আমিন মৃধার করা প্রতারণা মামলায় পুলিশ গ্রেপ্তার করে কারাগারে প্রেরণ করেছেন স্ত্রী ঝুমুরা বেগমকে (২২)। বুধবার তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়।এর আগে মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করে বোরহানউদ্দিন থানা-পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ঝুমুরা বেগম বোরহানউদ্দিন উপজেলার সাঁচড়া ইউনিয়নের দরুন বাজার, বাথানবাড়ি গ্রামের আব্দুর রশিদ কাজীর মেয়ে। আল-আমিন মৃধা বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের দালালপুর গ্রামের আলাউদ্দিন মৃধার ছেলে। মামলায় বাদী স্বামী আল-আমিন মৃধা জানান, ঝুমুর চাকুরির সুবাধে ঢাকার মোহাম্মদপুরের কাদেরাবাদ হাউজিংয়ে তার অফিসে যায়। তখন তাকে চাকুরি দিয়ে সহায়তা করেন আল-আমিন মৃধা। তার অফিসে চাকুরিরত অবস্থায় ঝুমুর বেগম আল-আমিন মৃধাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। ওই প্রস্তাবে রাজি না হলে মিথ্যা মামলায় জড়ানোরও হুমকি দিয়ে ঝুমুর আলামিনের কাছ থেকে ৫ লাখ ঠাকা দাবি করে।
তিনি আরও অভিযোগ করেন, দাবিকৃত টাকা না দেওয়ায় ঝুমুর ঢাকার মোহাম্মদপুর আলামিনে বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি ঝুমুরের বাবাকে জানানো হলে তার বাবা আব্দুর রশিদ কাজী বিষয়টি আপোষ মীমাংসার কথা বলে দরুইন বাজারে ডেকে নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মাস্তান নিয়ে জোরপূর্বক কাবিননামায় স্বাক্ষর নেন। ওই সময় ঝুমুর বেগম কেরানিগঞ্জের জুবায়ের আলম নামের এক যুবকের বিবাহিতা স্ত্রী ও ৫ মাসের অন্তঃস্বত্বা।
বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার আপোষ মীমাংসার চেষ্টার পরেও কোন সুরাহা না হওয়ায় আল-আমিন মৃধা ঝুমুরের বিরুদ্ধে গত ১৩ জুন প্রতারণার অভিযোগ এনে ঢাকার সিএমএম আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর ঝুমুর আদালতে হাজির না হওয়ায় আদালত ঝুমুর বেগমের নামে ১৯ জুলাই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। পুলিশ স্ত্রী ঝুমুর বেগমকে গ্রেপ্তার করে বুধবার ভোলায় আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বোরহানউদ্দিন থানার ওসি শাহিন ফকির জানান, ঝুমুরকে মঙ্গলবার গভীর রাতে গ্রেপ্তার করে কোর্টের মাধ্যমে জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন