আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ বৃহস্পতিবার, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৩শে মে, ২০২৪ ইং, ১৩ই জিলক্বদ, ১৪৪৫ হিজরী
সর্বশেষঃ

দুর্নীতির অভিযোগে বিআইডব্লিউটিসির সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা

চট্টগ্রামের নৌ ফেরি বন্দরে দরপত্রে মিথ্যা তথ্য দাখিলের মাধ্যমে নিম্নমানের ফগ সার্চ লাইট সরবরাহ করে সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) চেয়ারম্যান, মহাব্যবস্থাপক ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মালিকসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) দুদক প্রধান সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মো. সাইদুজ্জামান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

বিষয়টি ঢাকা টাইমসকে নিশ্চিত করেন দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক।

যাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে তারা হলেন-বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের প্রাক্তন জি.এম (মেরিন) ক্যাপ্টেন শওকত সরদার, প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও পরিচালক (কারিগরি) ড. জ্ঞান রঞ্জন শীল, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন উপসচিব পঙ্কজ কুমার পাল, বিআইডব্লিউটিসির মহাব্যবস্থাপক মো. নুরুল হুদা, মহাব্যবস্থাপক (মেকানিক্যাল, বর্তমানে অবসর) ইঞ্জিনিয়ার মো. রহমত উল্লা, বিজেএমসির ম্যানেজার (মেকানিক্যাল) ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স জনী করপোরেশনের স্বত্বাধিকারী ওমর আলী।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, আসামিরা দরপত্রের সঙ্গে দাখিলকৃত প্রত্যয়নপত্র যাচাই না করে মিথ্যা তথ্য সম্বলিত দরপত্রকে রেসপনসিভ দেখিয়ে সার্চ ও ফগ লাইটের স্থলে নিম্নমানের সার্চ লাইট সরবরাহ করে বিআইডব্লিউটিসির ফেরিতে ফগ লাইট স্থাপনের প্রকল্প ব্যর্থ করে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।

এই ঘটনায় অপরাধজনক বিশ্বাস ভঙ্গ করে পরস্পর যোগসাজসে সরকারের পাঁচ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ক্ষতি সাধন করে আত্মসাৎ করায় দণ্ডবিধি ৪২০/৪০৯/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক।

ফেসবুকে লাইক দিন