আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ শনিবার, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২৪ ইং, ২০শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ খেলতে চার দেশকে আমন্ত্রণ

অনলাইন ডেস্ক :
বিদায়ী বছরে বাংলাদেশ ফুটবল দল ঘরের মাঠে কোনো ম্যাচ খেলেনি। ২০২১ সালে জাতীয় দল যে ১৬ ম্যাচ খেলেছে সবগুলোই বিদেশে। বাংলাদেশ ঘরের মাঠে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছে ২০২০ সালের ৪ ডিসেম্বর কাতারের বিপক্ষে। সেটি ছিল ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ।বিগত ২২ বছরের মধ্যে ২০২১ সালে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল সবচেয়ে বেশি ১৬ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে। এর আগে ২০১৫ সালে ১৫টি ম্যাচ খেলেছিল লাল-সুবজ জার্সিধারীরা। তবে ঘরের মাঠে একটিও ম্যাচ না খেলার ঘটনা ২০১৩ সালের পর। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) বিদায়ী বছরে সাফল্য পাওয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। বিদেশি কোচিং স্টাফ, দেশে ফাইভ স্টার হোটেলে ক্যাম্প এবং বিদেশে অনুশীলন- সব প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হয়েছে। পাওয়ার মধ্যে ১৬ ম্যাচে ৩ জয় (কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব-২৩, শ্রীলংকা ও মালদ্বীপের বিপক্ষে) ও ৬ ড্র। কোনো ট্রফির দেখা মেলেনি। উন্নতি হয়নি ফিফা র‍্যাংকিংয়েও। বিদায়ী বছরের সব ম্যাচ বিদেশের মাটিতে খেলা হয়েছে বিধায় বাফুফে চাইছে নতুন বছরের প্রথম ফিফা উইন্ডোতে ঘরের মাঠে প্রীতি ম্যাচ খেলতে। নতুন বছরের ফিফার প্রথম উইন্ডো ২৪ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি। এ সময়ে প্রীতি ম্যাচ খেলার উদ্যোগ নিয়েছে বাফুফে।আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ খেলতে চার দেশকে আমন্ত্রণআন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ খেলতে চার দেশকে আমন্ত্রণ
বিদায়ী বছরে বাংলাদেশ ফুটবল দল ঘরের মাঠে কোনো ম্যাচ খেলেনি। ২০২১ সালে জাতীয় দল যে ১৬ ম্যাচ খেলেছে সবগুলোই বিদেশে। বাংলাদেশ ঘরের মাঠে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছে ২০২০ সালের ৪ ডিসেম্বর কাতারের বিপক্ষে। সেটি ছিল ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ।বিগত ২২ বছরের মধ্যে ২০২১ সালে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল সবচেয়ে বেশি ১৬ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে। এর আগে ২০১৫ সালে ১৫টি ম্যাচ খেলেছিল লাল-সুবজ জার্সিধারীরা। তবে ঘরের মাঠে একটিও ম্যাচ না খেলার ঘটনা ২০১৩ সালের পর।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) বিদায়ী বছরে সাফল্য পাওয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। বিদেশি কোচিং স্টাফ, দেশে ফাইভ স্টার হোটেলে ক্যাম্প এবং বিদেশে অনুশীলন- সব প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হয়েছে। পাওয়ার মধ্যে ১৬ ম্যাচে ৩ জয় (কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব-২৩, শ্রীলংকা ও মালদ্বীপের বিপক্ষে) ও ৬ ড্র। কোনো ট্রফির দেখা মেলেনি। উন্নতি হয়নি ফিফা র‍্যাংকিংয়েও।

বিদায়ী বছরের সব ম্যাচ বিদেশের মাটিতে খেলা হয়েছে বিধায় বাফুফে চাইছে নতুন বছরের প্রথম ফিফা উইন্ডোতে ঘরের মাঠে প্রীতি ম্যাচ খেলতে। নতুন বছরের ফিফার প্রথম উইন্ডো ২৪ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি। এ সময়ে প্রীতি ম্যাচ খেলার উদ্যোগ নিয়েছে বাফুফে। বাংলাদেশে এসে ম্যাচ খেলার জন্য বাফুফে এরই মধ্যে চারটি দেশকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। নেপাল, মঙ্গোলিয়া, লাওস ও কম্বোডিয়াকে আতিথেয়তা দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে বাফুফে। তবে এখনও কোন দেশ সবুজ সংকেত দেয়নি। কারণ সব দেশই ব্যস্ত ঘরোয়া ফুটবল নিয়ে।বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, ‘আমরা জানুয়ারির উইন্ডোতে প্রীতি ম্যাচ খেলার জন্য দল পাওয়ার চেষ্টা করছি। চারটি দেশকে চিঠি দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশে এসে খেলার জন্য। কোনো দেশই কিছু জানায়নি। আশা করে আগামী সপ্তাহে জানতে পারবো। যেকোনো একটি দেশ রাজি হলে আমরা ঘরের মাঠে ম্যাচ আয়োজন করবো।’

ফেসবুকে লাইক দিন