কান্নায় ভেঙে পড়লেন জাহাঙ্গীর, বললেন ‘প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বোঝানো হয়েছে’

অনলাইলা ডেস্ক :
গাজীপুর সিটি করপোরেশন মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে আজীবনের জন্য আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ বিষয়ে শনিবার দুপুর ১২টায় সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলন শুরুর আগে কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন মেয়র জাহাঙ্গীর। এসময় তিনি দাবি করেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বোঝানো হয়েছে। মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, দুই মাস ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করছি। তবে আমাকে দেখা করার অনুমতি দেয়া হয়নি।
এসময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘ছাত্র রাজনীতি করার সময় থেকে একটি প্রতিপক্ষ আমার নানাভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমার ঘরের ভিতরে বসে তিন ঘন্টার আলাপচারিতাকে খন্ড খন্ড করে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে।’ এ সময় তিনি আরো বলেন, ‘আমি কোন ভুল করিনি, তবুও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা আমি মাথা পেতে নিব।’
এসময় তিনি তার আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ ফিরে পাবার আকুতি জানান। মেয়র বলেন, ‘আমি কোন অন্যায় করিনি অপরাধ করিনি। আমি এ সাধারণ সম্পাদক পদ চাইনা। বাকি জীবন আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্য ও সমর্থক হয়ে থাকতে চাই।’ মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, আমাকে বহিষ্কার করে মানসিকভাবে আঘাত দেওয়া হয়েছে যা আমি ও আমার পরিবার মেনে নিতে পারছি না। আমি বহিষ্কারের বিষয়ে নেত্রীর কাছে রিভিউ করব। এদিকে শুক্রবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় জাহাঙ্গীরকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত আসার পর পরই গাজীপুরের সালনা, টঙ্গীসহ বিভিন্ন এলাকায় আনন্দ মিছিল বের করেন মেয়রবিরোধীরা। টঙ্গীতে মেয়রবিরোধীরা সন্ধ্যার পর আতশবাজি পুড়িয়ে উল্লাস প্রকাশ করেন। সেই সঙ্গে তারা একে অন্যকে মিষ্টিমুখ করিয়ে আনন্দ করেন। রাত ৮টার দিকে থানার বিভিন্ন এলাকা থেকে ছোট ছোট দলে মিছিল নিয়ে নেতা-কর্মীরা জড়ো হতে থাকেন থানা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের দিকে। এ সময় তারা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানান।.

ফেসবুকে লাইক দিন