আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে চান? - বিস্তারিত
ঢাকা আজঃ শনিবার, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২৪ ইং, ২০শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরী

মালদ্বীপে অভ্যর্থনায় সিক্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

অনলাইন ডেস্ক:
মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহের আমন্ত্রণে দ্বিপক্ষীয় সফরের অংশ হিসেবে প্রথমবারের মতো ছয় দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে মালদ্বীপ গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টার দিকে মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এ সময় বিমানবন্দরে উষ্ণ অভ্যর্থনায় সিক্ত হন তিনি। বুধবার বেলা ১২টায় একটি বিশেষ ফ্লাইটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী।
বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়। সেখানে মালদ্বীপ সরকারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানান সেদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আহমেদ খলিল। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহর যায় রাজধানী মালের হোটেল জিনে। সফরকালে এ হোটেলেই অবস্থান করবেন তিনি। বৃহস্পতিবার সকালে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাবেন। এসময় তাকে দেয়া হবে গার্ড অব অনার। পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানিয়েছেন, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে স্থানীয় সময় বিকেল ৩টায় ভেলানা আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরন করে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এ সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে রয়েছেন।সফরে দুই দেশের মধ্যে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, দ্বৈত করারোপ, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ে কয়েকটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে।

প্রস্তাবিত চুক্তিগুলো হচ্ছে- দ্বৈত কর পরিহার, বন্দী বিনিময় এবং দুটি সমঝোতা স্মারকসহ চারটি চুক্তি সই হবে। সমঝোতা স্মারকগুলো হচ্ছে- বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে স্বাস্থ্য সেবা ও চিকিৎসা বিজ্ঞান (নবায়ন) এবং দুদেশের যুব ও ক্রীড়া ক্ষেত্রের উন্নয়নে সহযোগিতা।

এছাড়া, বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ চুক্তি নবায়ন করা হবে।সফরকালে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ দুটির মধ্যে বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে বাংলাদেশ মালদ্বীপকে ১৩টি সামরিক যান উপহার দিবে।

এসময় প্রতীকীভাবে সামরিক সরঞ্জাম হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সফর শেষে ২৭ ডিসেম্বর বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

এছাড়া দেশটির প্রধান বিচারপতি ও স্পিকার সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। এছাড়া এই সফরে মালদ্বীপে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজনে নাগরিক সংবর্ধনায় ভার্চুয়ালি যোগ দেয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আগামীকাল মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ আনুষ্ঠানিকভাবে অভ্যর্থনা জানাবেন। এ সময় বাংলাদেশের সরকার প্রধানকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে। প্রধানমন্ত্রী একই দিন প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করবেন। বৈঠক শেষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের উপস্থিতিতে দু’দেশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন। পরে দু্ন নেতা গণমাধ্যমের সামনে যৌথ বিবৃতি দিবেন। সফরকালে মালের হোটেল জিনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মালদ্বীপের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফয়সাল নাসিম, পার্লামেন্টের স্পিকার মোহাম্মদ নাশিদ এবং সে দেশের প্রধান বিচারপতি উজ আহমেদ মুতাসিম আদনান সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। শেখ হাসিনা ২৩ ডিসেম্বর বিকেলে মালদ্বীপের পার্লামেন্টে ভাষণ দিবেন। সন্ধ্যায় মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ও সে দেশের ফাস্ট লেডি আয়োজিত রাষ্ট্রীয় ভোজ সভায় যোগ দিবেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা ২৪ ডিসেম্বর মালেতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেয়া সংবর্ধনায় ভার্চুয়ালি যোগ দিবেন। প্রধানমন্ত্রী ২৭ ডিসেম্বর বিকেলে ঢাকা ফিরবেন।

ফেসবুকে লাইক দিন