ইউনিক আইডি কি ও কেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বাংলাদেশ রকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় জাতীয়তা সনদের মতো প্রত‍্যেক শিক্ষার্থীকে একটি ডিজিটাল কার্ড ( প্লাস্টিকের এটি এম/ স্মার্ট কার্ডের মতো ) দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন । এই আইডিতে ডিজিটাল ভাবে শিক্ষার্থীর যাবতীয় তথ‍্য পাওয়া যাবে। এই আইডির নাম ইউনিক আইডি। সেখানে প্রত‍্যেক শিক্ষার্থীর জন‍্য আলাদা একটা রোল নম্বর থাকবে। এই রোল নম্বরটি সারাজীবন প্রত‍্যেক ক্লাসে ব‍্যবহার করতে হবে এবং একই থাকবে ।

এখন থেকে ক্লাসে কোন রোল এক, দুই , তিন থাকবে না। এটা হবে বিশাল বড় একটা রোল নম্বর যেটা মোবাইল নম্বরের মতো।

এই মহৎ ও কঠিন কাজ করার জন‍্য চার পৃষ্ঠার একটা ফরম পূরণ করে শীঘ্রই স্কুল/ কলেজে জমা দিতে হবে ( স্কুল/কলেজ থেকে বলবে )।
ইউনিক আইডি প্রদান সংক্রান্ত শিক্ষার্থী প্রােফাইল ও ডাটাবেজ প্রণয়নের লক্ষে শিক্ষার্থীর তথ্যফরম পূরণে যে সকল ডকুমেন্ট প্রয়ােজন হবে তার তালিকা (৬ষ্ঠ থেকে শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত)

১। শিক্ষার্থীর পাসপাের্ট সাইজের রঙ্গিন ছবি ২ কপি। ( ছবির বেকগ্রাউন্ড অবশ‍্যই সাদা হতে হবে)

২। শিক্ষার্থীর জন্ম নিবন্ধনের ফটোকপি ০১টি।

৩। শিক্ষার্থীর রক্তের গ্রুপ সনাক্তের মেডিকেল রিপাের্টের ফটোকপি ১টি।

৪। মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের (NID) ফটোকপি ০১টি। (পরিচয়পত্রের অপর পৃষ্ঠায় মাতার মােবাইল নম্বরটি লিখে দিতে হবে)।

৫। মাতার জন্ম নিবন্ধনের ফটোকপি ০১টি।

৬। পিতার জাতীয় পরিচয়পত্রের (NID) ফটোকপি ০১টি। (পরিচয়পত্রের অপর পৃষ্ঠায় পিতার মােবাইল নম্বরটি লিখে দিতে হবে)।

৭। পিতার জন্ম নিবন্ধনের ফটোকপি ০১টি

৮। পিতা-মাতা উভয়ই জীবিত না থাকলে অভিভাবকের জাতীয় পরিচয়পত্রের (NID) ফটোকপি ০১টি।

৯। শিক্ষার্থীর রেজিষ্ট্রেশনের ফটোকপি ০১টি (৮ম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য প্রযােজ্য।

১০। প্রাথমিক/ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষার সনদের ফটোকপি ০১টি (৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণিতে অধ্যয়নরতদের জন্য প্রযােজ্য)।

১১। পিইসি/ইবতেদায়ী, জেএসসি/জেডিসি,এসএসসি/দাখিল/ ভােকেশনাল পরীক্ষার নম্বরফর্দ (ট্রান্সক্রিপ্ট) এর ফটোকপি ০১টি।

১২। শিক্ষার্থী প্রতিবন্ধী হলে প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেটের ফটোকপি ০১টি। (সকল তথ্য অবশ্যই সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে হবে]

ফেসবুকে লাইক দিন